ঘরে ঘরে বিদ্যুৎ
শেখ হাসিনার উদ্যোগ, ঘরে ঘরে বিদ্যুৎ

জাতীয় প্রবৃদ্ধি অর্জন, দারিদ্র বিমোচন এবং দেশের আর্থসামাজিক উন্নয়নের অন্যতম চালিকা শক্তি বিদ্যুৎ। আর্থসামাজিক ও মানব উন্নয়নে ঘরে ঘরে বিদ্যুৎ পৌঁছানো এ কর্মসূচির লক্ষ্য। ২০০৯ সালে দ্বিতীয়বার ক্ষমতায় এসেই শেখ হাসিনা দেশের বিদ্যুৎ উৎপাদন , সঞ্চালনও বিতরণ ব্যবস্থায় বৈপ্লবিক অগ্রগতি সাধন করেন। তাঁর দূরদর্শী ও বলিষ্ঠ নেতৃত্বের ফলে দেশের সর্বত্রই এখন বিদ্যুতের আলো পৌঁছে গেছে। প্রচলিত পদ্ধতিতে বিদ্যুৎ উৎপাদনের পাশাপাশি সৌরবিদ্যুৎ, উইন্ডমিল ও বায়োগ্যাস থেকেও বিদ্যুৎ উৎপাদিত হচ্ছে। এছাড়াও দেশে প্রথমবারের মতো শুরু হতে যাচ্ছে পরমাণু বিদ্যুতের উৎপাদন।

অর্জন
*     ২০০৯ সালে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দায়িত্ব গ্রহণকালে বিদ্যুতের প্রকৃত উৎপাদন ছিল ৩,২৬৮ মেগাওয়াট। বর্তমানে উৎপাদন ক্ষমতা ১৫,৭৫৫ মেগাওয়াটে  উন্নীত হয়েছে।
*     বিগত ৮ বছরে ৪৭% থেকে ৮০% লোক বিদ্যুৎ সুবিধার আওতায় এসেছে।
*    ৮১টি নতুন বিদ্যুৎ প্লান্ট স্থাপিত হয়েছে। নির্মাণাধীন রয়েছে ১৫টি এবং আরো ৪১টি নির্মাণের জন্য কার্যক্রম গ্রহণ করা হয়েছে।
*    বিগত ৭ বছরে ১ কোটিরও বেশি গ্রাহককে বিদ্যুৎ সংযোগ দেওয়া হয়েছে।
*    ২০০৯ সালের পর সৌর বিদ্যুতের সুবিধাপ্রাপ্ত লোকের সংখ্যা ২০ লক্ষ থেকে বৃদ্ধি পেয়ে জুন ২০১৭ পর্যন্ত মোট ২ কোটিতে এসে দাঁড়িয়েছে।
*    দেশের বিদ্যুৎ খাতের অভূতপূর্ব উন্নয়নের ফলে অবকাঠামো, কৃষি ও  শিল্প খাতে ইতিবাচক প্রভাব পড়েছে এবং নতুন কর্মসংস্থান সৃষ্টি হয়েছে।

ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা
*     ৭ম পঞ্চমবার্ষিকী (২০১৬-২০২০)  পরিকল্পনায় ২০২০ সাল নাগাদ ২৩ হাজার মেগাওয়াট বিদ্যুৎ উৎপাদন এবং দেশের ৯৬ শতাংশ এলাকাকে বিদ্যুৎ সরবরাহের আওতায় নিয়ে আসার পরিকল্পনা রয়েছে।
*    রুপপুর পরমাণু বিদ্যুৎ কেন্দ্র থেকে ২০২৪ সালের মধ্যে ২৪০০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ উৎপাদনের পরিকল্পনা গ্রহণ করা হয়েছে।
*    বিদ্যুৎবিহীন এলাকার শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানসমূহে অগ্রাধিকার ভিত্তিতে সোলার প্যানেল স্থাপন করা।

(তথ্যসুত্র: বাংলাদেশ চলচ্চিত্র ও প্রকাশনা অধিদপ্তর)