বিনিয়োগ বিকাশ
শেখ হাসিনার নির্দেশ, বিনিয়োগ বান্ধব বাংলাদেশ
বাংলাদেশ এক বিপুল সম্ভাবনার দেশ। অতীতে এদেশের সৌন্দর্য এবং সম্পদের প্রতি আকৃষ্ট হয়ে আরব ও ইউরোপ থেকে বণিকেরা বাণিজ্যের উদ্দেশ্যে এদশে আসত। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দায়িত্ব নিয়েই দেশি-বিদেশি বিনিয়োগ আকৃষ্ট করার জন্য বেশ কিছু যুগান্তকারী পদক্ষেপ করেন। বিনিয়োগের অন্যতম পূর্বশর্ত হলো বিদ্যুৎ। বর্তমান সরকার বিদ্যুৎ ঘাটতি দূর করে উৎপাদন ক্ষমতা ১৫৭৫৫ মেগাওয়াটে উন্নীত করেছে। যোগাযোগ খাতের উন্নয়ন বিনিয়োগের নতুন দ্বার উন্মোচিত করেছে। নির্মাণাধীন পদ্মা সেতুর কাজ দ্রুত এগিয়ে চলেছে। মহাসড়কসমূহ চার লেনে উন্নীত হয়েছে। বাংলাদেশের সার্বিক যোগাযোগ ব্যবস্থার উন্নতির ফলে দেশের অভ্যন্তরে এবং আমদানি-রপ্তানির ক্ষেত্রে পণ্য পরিবহণের ব্যবস্থা সহজ হয়েছে। চট্টগ্রাম ও মংলা সমুদ্রবন্দর অত্যাধুনিক সমুদ্রবন্দর হিসেবে গড়ে উঠেছে।
অর্জন
*     দেশের ৮টি রপ্তানি প্রক্রিয়াকরণ অঞ্চলে ৪৬৪টি চালু শিল্পপ্রতিষ্ঠানে এযাবৎ ৪.৩৪ বিলিয়ন মার্কিন ডলার বিনিয়োগ হয়েছে।
*     ২০০১-০৮ সময়ে ইপিজেডসমূহে বিনিয়োগের পরিমাণ ছিল ৯৫৫ মিলিয়ন মার্কিন ডলার। ২০০৯-১৬ পর্যন্ত এই বিনিয়োগের পরিমাণ দাঁড়িয়েছে ২৬৬৮ মিলিয়ন মার্কিন ডলার। প্রবৃদ্ধির পরিমাণ ১৭৯%।
*     দেশি-বিদেশি বিনিয়োগ প্রচার ও প্রসার এবং নতুন উদোক্তা সৃষ্টির লক্ষ্যে বিনিয়োগ বোর্ড ও প্রাইভেটাইজেশন কমিশন একীভূত করে বাংলাদেশ বিনিয়োগ উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ (বিডা) গঠন করা হয়েছে।
*    পশ্চাদপদ ও অনুন্নত অঞ্চলসহ দেশের সম্ভাবনাময় এলাকাসমূহে অর্থনৈতিক অঞ্চল সৃষ্টির লক্ষ্যে বাংলাদেশ অর্থনৈতিক অঞ্চল কর্তৃপক্ষ (বেজা) গঠন করা হয়েছে।
*    সফটওয়্যার টেকনোলজি পার্ক, আইটি পার্ক, আইটি ভিলেজ, আইটি হাব ও আইটি খাতে রিসার্চ অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট সেন্টার স্থাপনের লক্ষ্যে বাংলাদেশ হাইটেক পার্ক কর্তৃপক্ষ গঠন করা হয়েছে।

*    বিনিয়োগ ও ব্যবসাবাণিজ্য সহজতর করতে গ্যাস-বিদ্যুৎ, পানি, টেলিফোন, প্লট বরাদ্দ, ওয়ার্ক পারমিট , রেসিডেন্ট ও নন-রেসিডেন্ট ভিসাসহ ১৬ ধরনের সেবা এক ছাতার নিচে দেওয়ার জন্য ওয়ান স্টপ সার্ভিস অ্যাক্ট ২০১৭ মন্ত্রিসভায় অনুমোদিত হয়েছে।


ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা
*     অধিকতর প্রবৃদ্ধি অর্জনের লক্ষ্যে রুপকল্প-২০২১’-এর আওতায় বৈদেশিক বিনিয়োগের লক্ষ্যমাত্রা ৫.৪ বিলিয়ন ডলার নির্ধারণ করা হয়েছে।
*     ২০৩০ সালের মধ্যে সারাদেশ ১০০টি অর্থনৈতিক অঞ্চল সৃষ্টি করা হবে।

(তথ্যসুত্র: বাংলাদেশ চলচ্চিত্র ও প্রকাশনা অধিদপ্তর)